Breaking News
Home / News Headlines (Bangla) / কিছু মতামত সংসদে জাতীয় বাজেট : সম্পাদকীয়

কিছু মতামত সংসদে জাতীয় বাজেট : সম্পাদকীয়

[ সম্পাদকীয় ] ১১ জুন 2020 সংসদে জাতীয় বাজেট ঘোষিত হয়েছে। দেখেই বোঝা যায় দায়সারা গোছের বাজেট।গরিব খেটে-খাওয়া মানুষের দুর্ভোগ বাড়িয়ে বুর্জোয়া মাফিয়া ও কালো টাকাওয়ালাদের কাছে নিঃশর্ত আত্মসমর্পণ। ঘোষিত বাজেট জনগণের মধ্যে এক নতুন উপলব্ধি জন্ম দিয়েছে। এক যুগের বেশি ক্ষমতায় থেকে আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের যে পড়া ছুটিয়ছিলেন তার অস্তিত্ব কোথায়? বাজেট সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা প্রয়োজন পড়ে না এই কারণে য বিশাল এক ঘাটতি বাজেট। অর্থমন্ত্রী মোস্তফা কামাল বিভিন্ন সময় বলেছিলেন তিনি গরিব থেকে এ পর্যায়ে এসেছেন তাই গরিব মানুষের জন্য তার নজর থাকবে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য তিনি খেটে খাওয়া মানুষের দিকে নজর না দিয়ে কাল টাকা ওয়ালা লুটেরাদের দিকে গভীর যত্নবান হয়েছেন।বাজেটে মাফিয়া নির্ভর হয়ে পড়েছে।



যে সংসদে বাজেট শেষ হলো সেই সংসদে কার্যত কোনো বিরোধী দল নেই। ইতোমধ্যে বিরোধী দলের এক নেতা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার না থাকলে দেশ চলবে কিভাবে? সেই গৃহপালিত বিরোধী দল সংসদে বাজেট সমালোচনা কি করবে তার জনগণ ইতোমধ্যে জেনে গেছেন।লক্ষণীয় বিষয় হলো দমন-পীড়ন করে বিএনপি’র মত দলকে কোনঠাসা করার চেষ্টা এবং বিতর্কিত মধ্যরাতের ভোটের মাধ্যমে যে ক্ষমতায়ন।

মোটামুটি ভাবে আমলানির্ভর সরকারের ঝগড়া যাত্রা। আমলাদের খুশি করার বাধ্যতামূলক সরকারি পদক্ষেপ। ব্যাপক বেতন বৃদ্ধি অস্বাভাবিক সুযোগ সুবিধা সম্প্রসারণ অস্বাভাবিক সুযোগ-সুবিধা সম্প্রসারণ করতে গিয়ে জনগণের উপর ট্যাক্স বাড়ানো হয়েছে। বিদ্যুৎ গ্যাস এবং দ্রব্যমূল্যের অস্বাভাবিক উন্নয়নের জোয়ারে জনগণ দিশেহারা। ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে নিতে অর্থনীতি ফোকলা হয়ে গিয়েছে। যে দেশে রাষ্ট্রীয় ব্যাংক থেকে ডিজিটাল কায়দায় টাকা চুরি হয় এবং তার বিচার হয় না সে দেশে আর কি হতে পারে? বিভিন্ন মন্ত্রনালয় যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তাতে যদি এবার একটি পর্দার দাম 2 লক্ষ ছাড়িয়ে যায় তাতে বলার কিছুই থাকবে না।



সরকার কোনো দুর্নীতি কেই প্রতিরোধ করতে পারছে না। বরং আরো দুর্নীতির সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে। ভাবতে অবাক লাগে দেশে হরতাল আন্দোলন কিছুই নেই। তারপরও সরকার ব্যর্থ কেন? কারণ সরকারের জবাবদিহিতা নেই।আমলাদের সহযোগিতায় ক্ষমতায় এসে আমলাদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেওয়া যাবে? করো নায় বিপর্যস্ত দেশ। মৃত্যুর মিছিল ক্রমেই দীর্ঘায়িত। এক অজানা আতঙ্কে সরকার। দেশে গণতন্ত্র না থাকলে কথিত উন্নয়ন হয় অর্থহীন। অর্থনীতি ইতিহাস এটা বারবার শিক্ষা দিলেও সরকার নির্বিকার।ব্যক্তি পূজা এবং ব্যক্তি তোষামোদিই এখন একমাত্র হাতিয়ার। তাই যতদিন দেশে সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত না হবে ততদিন এ ধরনের বাজেট দেখে মানুষ বলবেন হাস্যকর।।

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com