Breaking News
Home / News Headlines (Bangla) / বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় যোগ হচ্ছে নতুন ধারা

বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় যোগ হচ্ছে নতুন ধারা

[ শিক্ষা সংবাদ ] আগে কারিকুলাম পরিমার্জনের কাজ শুরু করেছিল জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড এনসিটিবি যায় এখন শেষ পর্যায়ে রয়েছে l এই পরিবর্তনের কারণেই প্রাক-প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা ব্যবস্থায় বড় ধরনের পরিবর্তন হবে l



নতুন পদ্ধতিতে একজন শিক্ষার্থী কোন বিভাগে পড়বেন শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান বিভাগ নেবে নাকি মানবিক বাণিজ্য বিভাগে পড়বেন তা নির্ধারণ হবে একাদশ শ্রেণিতে গিয়ে , আর ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত সবাইকে পড়তে হবে অভিন্ন দশটি l যদিও বর্তমানে পোড়ানো হচ্ছে 14 টি বই অর্থাৎ নতুন পদ্ধতি অনুযায়ী চারটি কমানো হচ্ছে তবে সংখ্যা কমিয়ে দশটি করা হলেও বদলে যাচ্ছে বইয়ের বিষয়বস্তু l



এছাড়া প্রাক-প্রাথমিক থেকে শুরু করে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত 10 টি মূল দক্ষতা এবং একটি বিষয় শেখানো হবে শিক্ষার্থীদের দক্ষতাগুলো হলো শিক্ষার্থীদের চিন্তা করার ক্ষমতা অর্জন করা সৃজনশীল চিন্তা করার ক্ষমতা ধর্ম শাস্ত্র শিক্ষা এবং শিল্প ও সংস্কৃতি, অন্যদিকে একজন শিক্ষার্থীকে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত অপরিবর্তিত এসএসসি পরীক্ষা হবে শুধুমাত্র দশম শ্রেণীর পাঠ্যসূচিতে অর্থাৎ দশম শ্রেণীর সিলেবাস অনুযায়ী হবে এসএসসি পরীক্ষার l
নবম শ্রেণী ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীর সকল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং মূল্যায়ন করা হবে তবে অষ্টম শ্রেণীর পরীক্ষা অব্যাহত রাখা হবে কিনা এ বিষয়ে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের কথা জানা যায়নি l



বর্তমানে দুই বছর মেয়াদী নবম ও দশম শ্রেণীর বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় সেই পদ্ধতি জানতে চান পরিমার্জিত নিরীক্ষা পদ্ধতির অনুযায়ী এসএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে l শুধুমাত্র দশম শ্রেণীর নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী নতুন পদ্ধতিতে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীর রুটিন আলাদা পাব বলে আশা করা হচ্ছে l
এদিকে নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী একাদশ শ্রেণীতে উপশ্রেণী পাবলিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং তখন একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীতে কয়টি সাবজেক্ট বন্ধ থাকবে এর মধ্যে বাংলা ইংরেজি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক বিজ্ঞান মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগের জন্য বাধ্যতামূলক করা হবে এর সঙ্গে একজন শিক্ষার্থী তার পছন্দের পরীক্ষার নম্বর একাদশ শ্রেণিতে সংরক্ষিত নম্বর মিলিয়ে চূড়ান্ত করা হবে ll



একজন শিক্ষার্থীর উচ্চ মাধ্যমিকের রেজাল্ট তবে কিছুতে নতুন পদ্ধতিতে শাখা নির্বাচনে কিছুটা নমনীয় তা দেখানোর চিন্তা করা হয়েছে আর এটি চূড়ান্ত হয় তাহলে একজন শিক্ষার্থীর চাইলে তার মূল শাখা দুটি বিষয়ের সঙ্গে অন্য আরেকটি বিষয় নিতে পারবেন l একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীতে পাবলিক পরীক্ষার বিষয়ে সরকারের যুক্তি হল বর্তমানে একাদশ শ্রেণীর একজন শিক্ষার্থী কলেজে বার্ষিক পরীক্ষায় অংশ নেয়ার মধ্য দিয়ে দ্বাদশ শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয় কিন্তু যখন ওই শিক্ষার্থী দ্বাদশ শ্রেণীতে ভর্তি থাকে তখন তাকে একটা বছর একাদশ শ্রেণীর বই গুলো বাড়িতে তুলে রেখে দিতে হয় , কারণ পড়ার সময় পাওয়া যায় না l অথচ দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী যখন এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয় তখন তাকে পুনরায় একাদশ শ্রেণিতে পড়ে আসলো আবার পড়তে হয় l এক বছর আগে পড়ে পড়ে শেষ করতে শিক্ষার্থীদের রীতিমতো পঞ্চম ও দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা এবং 2024 সালের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী 2025 সালে দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা পরিমার্জিত নতুন বই হাতে পাবেন অর্থাৎ পদ্ধতি অনুযায়ী প্রথম এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে 2024 সালে l



** বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে আপনার ব্যক্তিগত মতামত আমাদের কাছে ইমেইল করুন নাম ছবিসহ উপযুক্ত মন্তব্যটি আমাদের ফ্যানপেজে ছাপানো হবে ইনশা আল্লাহ

আরো সংবাদ পড়ুন :

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com