Breaking News
Home / News Headlines (Bangla) / সিনেমার স্টাইলে কন্যা অপহরণ চেষ্টায় আটক

সিনেমার স্টাইলে কন্যা অপহরণ চেষ্টায় আটক

বগুড়ায় বিয়ের আসর থেকে কনে কে অপহরণের চেষ্টা – খালেদ হাসান ( প্রধান সংবাদ সংগ্রহ এবং তথ্য দায় )




[ সারাদেশ ] শুক্রবার বেলা ৪টার সময় বগুড়ার ধুনটে বিয়ের আসর থেকে প্রেমিকাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে সেনা সদস্য এক প্রমিক ও তার বাহিনী। এসময় বাধা দিতে গেলে ওই প্রমিক ও তার বাহিনীর লোকজন প্রমিকার চাচাতো দুই ভাইকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে আহত করেছে। শুক্রবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে ধুনট উপজেলার চিকাশী ইউনিয়নের জোড়শিমুল গ্রামে। আহতরা হলো- জোড়শিমুল গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে সবুজ মিয়া (৩৫) ও একই গ্রামের তবিবর রহমানের ছেলে শাহীন মাহমুদ (৪৫)। আহতদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। এদের মধ্যে সবুজ মিয়ার অবস্থা আশংকাজনক বলে জানাগেছে।



এদিকে এঘটনায় স্থানীয় লোকজন সেনা সদস্য ওই প্রমিক সহ দুইজনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে। আটকতৃরা হলো- শাজাহানপুর উপজেলার রহিমাবাদ উত্তরপাড়া এলাকার ইমদাদুল হকের ছেলে ইমরান তালুকদার (২৫) ও একই গ্রামের আব্দুল শেখকুয়ারের ছেলে সাধমান সালিদ (২৪)। এদের মধ্যে প্রেমিক ইমরান তালুকদার ১৬ ক্যাবিনারী কক্সবাজারের রামু সেনাবাহিনীর সদস্য (সৈনিক নং-১০০৭৭৩১)।



জানাগেছে, শুক্রবার বিকেলে ধুনট উপজেলার চিকাশী ইউনিয়নের জোড়শিমুল গ্রামের খবির সরকারের মেয়ে সুমিতা আকতারের সাথে বগুড়ার লতিফপুর এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে জামিউল মান্নানের বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের অনুষ্ঠান শেষে হওয়া মাত্রই সেনা সদস্য ইমরান তালুকদার দুটি মোটরসাইকেলে তার বাহিনীদের নিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠানে হাজির হয়। এসময় ইমরান বিয়ের আসর থেকে সুমিতা আকতারকে টেনে হেঁচরে তার মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এতে বাধা দিতে গেলে ইমরান ও তার সহযোগিরা সুমিতা আকতারে প্রতিবেশি চাচাতো ভাই সবুজ মিয়া ও শাহীন মাহমুদকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে। এসময় স্থানীয় লোকজন ধাওয়া করে সেনা সদস্য ইমরান ও তার সহযোগি সাধমান সালিদকে আটক করে ধুনট থানা পুলিশে সোপর্দ করে।



এবিষয়ে আটক সেনা সদস্য ইমরান তালুকদার বলেন, সুমিতা আকতারের সাথে তার দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তাই সুমিতার কথা অনুযায়ি তাকে বাড়ি থেকে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন তিনি।তবে সুমি আকতারের বাবা খবির সরকার বলেন, তার মেয়ে সুমিতাকে দীর্ঘদিন ধরে ইমরান উত্যাক্ত করে আসছিল। একারনে তার মেয়েকে বাধ্য হয়ে বিয়ে দিচ্ছিলেন। এসংবাদ পেয়েই ইমরান ও তার সহযোগিরা তার মেয়েকে বিয়ের আসর থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এতে বাধা দিতে গেলে তারা আমার দুই ভাতিজাকে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত করে।



এবিষয়ে ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলকে দুই জনকে আটক করা হয়েছে। এঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান ওসি।

আরো সংবাদ পড়ুন :

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com